Friday, October 26, 2012

I will not devote myself blindly to anything

I wrote down the following feelings in a discussion on CHT VOICE FB Groups.
It is on a reply to Mr. Biplob Rahman's, comment, the moderator/admin of the group.

 

 The group admin has written that any kind of ANTI STATE and ANTI LAW AND ORDER ACTIVITIES" in the group must not be tolerable. I asked them what is the definition of ANTI STATE?

 

I wrote, "Dear Biplod Da, I don't know how one would separate between ANTI STATE and BESIDE STATE. From one's view STATE means the PEOPLE, NOT merely the LAW/THE MEn/Women made constitution. So Biplob Da, Will you clarify about the definition of "ANTI STATE" or "ANTI LAW AND ORDER"? I am confused."

"IF The Constitution of any country or The State itself exercise its might against humanity or if The State or The Constitution reject or discard its own history of pluralities, multicultural heritage then every human of That State or That Country Must/Should/have to fight against the REIGN of Jungle Tendencies. I personally believe it, maintain it, inherit it and exercise it. If Someone tagged me ANTI STATE by holding this Ideology I must SAY that YES you are right, i am ANTI STATE , even a Follower of the ANTI LAW, that means i dare to not to Care the LAW of the 'jungleeytes'. I am affirmed on it."

 

From my point of view if someone want to discuss on State, he/she must first clarify the definition of "STATE", Whose State it is, What kind of State it is? Without this answer i would not spontaneously devote my head upon it. 

 

৫০০ গুলিসহ আটক দুই পুলিশ এবং কিছু প্রশ্নবোধক চিহ্ন

বিডিনিউজ২৪.কম এর ওয়েবসাইট সহ প্রায় সব জাতীয় পত্রিকায় একটি খবর মোটমুটি গুরুত্ব দিয়ে প্রকাশ করা হয়েছে। তা হচ্ছে, ঢাকা শহরের এক জায়গা থেকে “৫০০ রাউন্ড গুলিসহ ২ পুলিশ আটক” হয়েছেন।

খবরটি আদতে প্রথমে সাদা চোখে খুবই নিরীহ গোছের মনে হয়। তবে যেহেতু এই আটক হওয়া পুলিশ দুইজন একটি বিশেষ অঞ্চল হতে এবং যেহেতু তারা একসময় সশস্ত্র সংগ্রামে যুক্ত ছিলেন এবং যেহেতু তারা বৃহৎ জাতিসত্তা বহির্ভূত অন্য জাতিসত্তার সদস্য তাই এই খবরটির অন্য একটি ডাইমেনশন সৃষ্টি হয়।

বিডিনিউজ২৪.কম লিখেছে, “গোয়েন্দা পুলিশের উপকমিশনার (মিডিয়া) মাসুদুর রহমান বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, কাফরুল থানা পুলিশ তাদের বাসায় অভিযান চালিয়ে তাদের কাছে ৫০০ রাউন্ড রাইফেলের গুলি পায়”। দুইজন সাধারণ পুলিশ সদস্য ঢাকার রাজধানীতে ১০০ নয় ২০০ নয় ৫০০ গুলি সংগ্রহ করেছে এবং তা পাচারের উদ্যোগ নিচ্ছে তা কেমন জানি অবিশ্ব্যাস্য মনে হয়। যদি বিশ্বাসই করি তবে এত বেশী পরিমাণ গুলি তারা কীভাবে সংগ্রহ করলো? তারা কি পুলিশের গোলাবারুদ শাখা হতে তা সংগ্রহ করেছে? যদি তা করে থাকে তবে, পুলিশের গোলাবারুদ সংরক্ষণ ডিপার্টমেন্ট কি ঘাস খেয়ে থাকে? তারা কোথায় যায় এত গুলি গোলাবারুদ সংরক্ষণ ডিপার্টমেন্ট থেকে পাচার হতে?যেখানে একটি গুলির হিসাবও প্র্রতিদিন নেয়ার বিধান রয়েছে নিরাপত্তা প্রশাসনে সেখানে তারা এত পরিমাণ গুলি কীভাবে সংগ্রহ করেছে তা আমার মাথায় আসছে না, একদম মিলাতে পারছিনা। এসব জিনিস অফিসের বাইরে নিয়ে বাড়িতে আনা তাও কেমন জানি সন্দেহজনক ঠেকে।
বিডিনিউজ২৪.কম লিখেছে “তারা মিরপুর ১৪ নম্বরে পুলিশের পাবলিক অর্ডার ম্যানেজমেন্টে (পিওএম) কর্মরত ছিলেন”। আমার অবশ্য জানা নেই পুলিশের এই ডিপার্টমেন্টের কী কাজ। তবে তাদের কাজ যাই-ই হোক, আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কেন্দ্রীয় দপ্তর হতে এত বেশী পরিমাণ ‘গুলি’ হারিয়ে যাওয়াকে কিন্তু স্বাভাবিক মনে করা ঠিক হবে না।

আর এত পরিমাণ একে47 রাইফেলের গুলি ঢাকায় দুইজন পুলিশ অন্য কোনো মাধ্যম হতে যদি সংগ্রহও করে থাকে তবে তাও বিশ্বাসযোগ্য মনে হয় না। বাংলাদেশের রাজধানী অঞ্চল ঢাকার মতো নিচ্ছিদ্র নিরাপত্তা বেষ্টিত এলাকায় এত অধিক পরিমাণ গুলি তারা কোথা থেকে সংগ্রহ করেছে তাও এখানে আলোচনায় আনা প্রয়োজন। যদি এটাই সত্য হয় যে তারা অন্য উৎস থেকে এসব সংগ্রহ করেছে তবে এই ব্যর্থতা কিন্তু সরকারকে নিতে হবে।

এসব প্রশ্ন এখানে আনার কথা এই জন্য বলা হচ্ছে কারণ, কেন জানি মনে হয় এই ঘটনা হচ্ছে একটি সাজানো নাটক। পার্বত্য চট্টগ্রাম সমস্যাকে সমাধান না করার জন্য হয়তো এমন এক গভীর চক্রান্ত।
আমার এই বক্তব্যের বিপক্ষে যদি কারো কোনো ব্ক্তব্য থাকে তবে তা প্রকাশ করলে খুশী হবো। এমনকি পুলিশ ডিপার্টমেন্টের যদি কোনো যুক্তি থাকে তাও তাদের জানানো প্রয়োজন। শুধু ভাড়া বাসা থেকে গুলিসহ গ্রেপ্তার করার পরে তাদেরকে সংবাদ মাধ্যমে এনে তা ফলাও করে প্রচার করেই তাতে ক্ষান্ত থাকলে কিন্তু তা প্রশ্নবোধক থেকেই যাবে।


পার্বত্য চট্টগ্রামকে নিয়ে নানামুখী কৌশল নির্ধারণ করা হয় এবং সরকার পার্বত্য সমস্যাকে সমাধানের জন্য উদ্যোগ না নিয়ে সবসময় নানামূখী চক্রান্ত চালায় বলেই আমাদের এই চিন্তার উদয় হচ্ছে। সরকার নিছক ‘আটক করে’ ক্ষান্ত হবে নাকি এর সঠিক উত্তর দেবে তার উপর কিন্তু অনেক কিছু নির্ভর করছে।
চাকমা ভাষায় একটি প্রবাদ বাক্য হচ্ছে,”সিবিদি হেনেই জিল ঘা অহলে। দোই পিলে দ্যালেও দর গরে”। তার মানে হচ্ছে, “চুন খেয়ে জিহ্বায় ঘা হলে দই এর হাঁড়ি দেখলেও ভয় হয়”। বর্তমানে পার্বত্য চট্টগ্রামের জনগণের হচ্ছে সেই অবস্থা।
বারবার সরকারের নানা আশ্বাস প্রদানের পর বিশ্বাস ভঙ্গ করে সেই আশ্বাসে চুনকালি লেপন করার কারনে সরকারের ভালো উদ্যোগও পার্বত্য চট্টগ্রামের জনগণকে বাঁকা চোখে দেখতে হয়।

উদ্যোগ গ্রহণ করা এবং উদ্যাগ সফল করার মধ্যে পার্থক্য

কোনো উদ্যোগ গ্রহণ করা এবং উদ্যোগকে সফল করার মধ্যে পার্থক্য করার জন্য কবি রবি ঠাকুরের লেখা থেকে একটি উদ্ধৃতি দিই-

 "শিক্ষ্যাসমস্যা" নামক একটি প্রবন্ধে তিনি বলছেন. " ... তিব্বতি মনে করে যে, লোক ভাড়া করিয়া তাহাকে দিয়া একটা মন্ত্রলেখা চাকা চালাইলেই পুণ্যলাভ হয় তেমনি আমরাও মনে করি, কোনোমতে একটা সভা স্থাপন করিয়া কমিটির দ্বারা যদি সেটা চালাইয়া যাই তবেই আমরা ফললাভ করিব।বস্তুত সেই স্থাপন করাটাই যেন লাভ।"

এরপর তিনি নিজের অভিজ্ঞতা প্রকাশ করে বলছেন : "আমরা অনেকদিন হইল একটা বিজ্ঞানসভা স্থাপন করিয়াছি, তাহার পরে বৎসরে বৎসরে বিলাপ করিয়া আসিয়াছি- দেশের লোকে বিজ্ঞান শিক্ষায় উদাসীন। কিন্তু একটা বিজ্ঞানসভা স্থাপন করা এক, আর দেশের লোকের চিত্তকে বিজ্ঞানশিক্ষায় নিবিষ্ট করা আর।সভা ফাঁদিলেই তাহার পরে দেশের লোক বিজ্ঞানী হইয়া উঠিবে এরূপ মনে করা ঘোর কলিযুগের কল-নিষ্ঠার পরিচয়।"

এক লেখায় বোধহয় তিনি বলেছিলেন, আমরা আরম্ভ করি শেষ করিনা ... ... ...।

এই উদ্ধৃতি দেয়ার উদ্দেশ্য হচ্ছে, আমরাও মনে করি আমরা যেহেতেু একটি কাজ শুরু করেছি এবং তা সবার ভালোর জন্য সেহেতু আমাদের এই ভালো কাজের পেছনে হুড়হুড় করে সবাই আসবে, সবাই ভালো কাজকে প্রশংসা করবে .... .... ।
কিন্তু আসলে হয় তার উল্টো। আমরা কাজ শুর করি খুব উৎসাহ দিয়ে এবং মাঝখানে এসে আমরা 'আনুধোর' দেখি। আমরা হতাশ-নিরাশ  এবং পরে বিলাপ করতে থাকি শেষে 'ভালো কাজ" করা থেকে ইতি দিয়ে নিজের ভালোর জন্য জানপরান সঁপে দিই।
এই বৈশিষ্ট্য যেমন রয়েছে আমাদের সাধারণ সকলের  মধ্যে তেমনি আমরা যারা সমাজের জন্য কিছু করার চেষ্টা করি তাদের মধ্যেও।
অথবা রবীন্দ্রনাথ যেমন বলেছেন, "দেশের লোকে বিজ্ঞান শিক্ষায় উদাসীন" এই উপসংহার টেনে নিজেকে প্রবোধ দেয়ার সর্বতো চেষ্টায় নিরত থাক
মূলতঃ এটাই সত্য যে, আপনি যে উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন সেই উদ্যোগ সফলও করতে হবে আপনাকে।এবং কিভাবে সফল করবেন তার কৌশল নির্ধারণ করাও তো আপনারই দায়িত্ব!
'মন্ত্রের সাধন কিংবা শরীর পাতন' এই মন্ত্র যদি আপনার থাকে কোনো কাজ হাতে নেয়ার ক্ষেত্রে তবে আপনি সফল হবেনই। মাও সেতুঙ যেমন বলেছিলেন, বোকা বুড়োর মতো হতে হবে, যে পাহাড় সরিয়েছিলো, যাকে দেবতারাই সহযোগিতা করেছিলো পাহাড় সরাতে! মাও সেতুঙ অন্ধ ভক্ত ছিলেন সেই দেবতাদের ।

Thursday, October 25, 2012

KALPANA CHAKMA WILL NEVER DIE: MAKE THE INQUIRY REPORT PUBLIC

KALPANA CHAKMA WILL NEVER DIE: MAKE THE INQUIRY REPORT
PUBLIC
By Mithun Chakma, General Secretary, Democratic Youth
Forum


FLASH BACK
On the night of 11 June, 1996. Scene: New Lalyaghona
village, Marishya, Rangamati. Barely 7/8 hours were to
go before the voting for the seventh National
Parliamentary Elections began. Earlier in the day
Kalpana Chakma had taken part in exhaustive election
campaign for her candidate. She felt tired and soon
dipped into a deep sleep. What was she dreaming in her
sleep? A dream dreamt by each and every Jumma? A
sudden, shrill and harsh voice made her awoke: "Who
are in the house? Come out." In pure Bangla the voice
spoke. It was past midnight, about 1.30 a.m. to be
exact. The sounds of the boots of the soldiers were
tearing the stillness of the night apart.

Mrs. Bandhuni Chakma, Kalpana Chakma's widowed mother,
got out of the bed and opened the door, her whole body
trembling in fear. Then one by one came out: Kalpana
Chakma, her two brothers, Khudhiram and Kalindi Kumar,
and Kalindi Kumar's wife. The house was surrounded by
the marauding soldiers so that no one could escape. A
soldier flashed a torch on their faces and Kalindi
Kumar recognized Lt. Ferdous, who had visited their
house a few days back, and two VDP (Village Defence
Party) members - Nurul Haqe and Salah Ahmed. Amnesty
International in an Urgent Action issued on 1st July
wrote: "Six or seven security personnel in
plainclothes, believed to be from Ugalchari army camp
(actually Lieut. Ferdous was commander of Kojoichari
Army camp), are reported to have entered the home of
Kalpana Chakma in New Lallyaghona village, Rangamati
district in the early hours of 12 June. Kalpana Chakma
and two of her brothers were forcibly taken from their
home, blindfolded and with their hands tied."

What happened after that? Members of the Ain -o-
Salish Kendra (ASK), a Bangladeshi human rights
organisation, visited the place of occurrence after
the incident. In their report they said, “They (army)
took Khudiram near a lake and told him to step into
the lake. As soon as he went down in the lake, there
was an order to fire bullet on him. Out of fear
Khudiram took shelter in the water and with a fearful
swimming of some minutes he managed to take shelter in
the house of one neighbour called Lamba, but without
clothes in his body. The armed personnel fired at him
but he managed to flee without being hurt. In the
meantime the armed personnel took Kalpana Chakma and
her brother Kalindi Kumar blindfolded. After hearing
the firing he (Kalindi Kumar) tried to run to flee
from them, and he managed. When he was fleeing he
heard two firings and heard that his sister Kalpana
Chakma was screaming.” In an interview Kalicharan
(Kalindi Kumar) said “They shot at me and when I ran I
could hear Kalpana crying out ‘Dah Dah Mare Baja"
(Brother, brother save me!).

Dear readers, please don't mistake it for a
Shakespearean tragedy. It's real life in Chittagong
Hill Tracts.

WHY WAS SHE ABDUCTED?
Kalpana Chakma is a combination of an indigenous
political activist, a women leader and a human rights
defender. She was the organising secretary of the Hill
Women's Federation, a platform for the Jumma women in
Chittagong Hill Tracts. She is an excellent organiser
and played a very important role in organising its
first central conference in Khagrachari in 1995. The
Daily Star reporter Morshed Ali Khan, who visited
Kalpana Chakma's house after the incident, wrote:
‘Local youth said that Kalpana, a student of BA at the
local college, was always a strong and vocal activist
for the cause of the Chakma people and she regularly
attended conferences, discussions at the national
level and played a prominent role in this respect’.
KALPANA CHAKMA WILL NEVER DIE: MAKE THE INQUIRY REPORT
PUBLIC
By Mithun Chakma, General Secretary, Democratic Youth
Forum


FLASH BACK
On the night of 11 June, 1996. Scene: New Lalyaghona
village, Marishya, Rangamati. Barely 7/8 hours were to
go before the voting for the seventh National
Parliamentary Elections began. Earlier in the day
Kalpana Chakma had taken part in exhaustive election
campaign for her candidate. She felt tired and soon
dipped into a deep sleep. What was she dreaming in her
sleep? A dream dreamt by each and every Jumma? A
sudden, shrill and harsh voice made her awoke: "Who
are in the house? Come out." In pure Bangla the voice
spoke. It was past midnight, about 1.30 a.m. to be
exact. The sounds of the boots of the soldiers were
tearing the stillness of the night apart.

Mrs. Bandhuni Chakma, Kalpana Chakma's widowed mother,
got out of the bed and opened the door, her whole body
trembling in fear. Then one by one came out: Kalpana
Chakma, her two brothers, Khudhiram and Kalindi Kumar,
and Kalindi Kumar's wife. The house was surrounded by
the marauding soldiers so that no one could escape. A
soldier flashed a torch on their faces and Kalindi
Kumar recognized Lt. Ferdous, who had visited their
house a few days back, and two VDP (Village Defence
Party) members - Nurul Haqe and Salah Ahmed. Amnesty
International in an Urgent Action issued on 1st July
wrote: "Six or seven security personnel in
plainclothes, believed to be from Ugalchari army camp
(actually Lieut. Ferdous was commander of Kojoichari
Army camp), are reported to have entered the home of
Kalpana Chakma in New Lallyaghona village, Rangamati
district in the early hours of 12 June. Kalpana Chakma
and two of her brothers were forcibly taken from their
home, blindfolded and with their hands tied."

What happened after that? Members of the Ain -o-
Salish Kendra (ASK), a Bangladeshi human rights
organisation, visited the place of occurrence after
the incident. In their report they said, “They (army)
took Khudiram near a lake and told him to step into
the lake. As soon as he went down in the lake, there
was an order to fire bullet on him. Out of fear
Khudiram took shelter in the water and with a fearful
swimming of some minutes he managed to take shelter in
the house of one neighbour called Lamba, but without
clothes in his body. The armed personnel fired at him
but he managed to flee without being hurt. In the
meantime the armed personnel took Kalpana Chakma and
her brother Kalindi Kumar blindfolded. After hearing
the firing he (Kalindi Kumar) tried to run to flee
from them, and he managed. When he was fleeing he
heard two firings and heard that his sister Kalpana
Chakma was screaming.” In an interview Kalicharan
(Kalindi Kumar) said “They shot at me and when I ran I
could hear Kalpana crying out ‘Dah Dah Mare Baja"
(Brother, brother save me!).

Dear readers, please don't mistake it for a
Shakespearean tragedy. It's real life in Chittagong
Hill Tracts.

WHY WAS SHE ABDUCTED?
Kalpana Chakma is a combination of an indigenous
political activist, a women leader and a human rights
defender. She was the organising secretary of the Hill
Women's Federation, a platform for the Jumma women in
Chittagong Hill Tracts. She is an excellent organiser
and played a very important role in organising its
first central conference in Khagrachari in 1995. The
Daily Star reporter Morshed Ali Khan, who visited
Kalpana Chakma's house after the incident, wrote:
‘Local youth said that Kalpana, a student of BA at the
local college, was always a strong and vocal activist
for the cause of the Chakma people and she regularly
attended conferences, discussions at the national
level and played a prominent role in this respect’.

On 19th March 1996, an incident occurred in Kalpana’s
village. ASK in its report said, ‘Villagers told us
that on 19th March1996, 7 Chakma houses were burned
and villagers were abused by the Bengal Regiment’. On
23 July the Janakantha, a Bengali language daily
published from Dhaka, quoted a Hill Students Council
leader saying "Kalpana Chakma vehemently protested
against the incident." He told the Janakantha that
Kalpana Chakma squarely blamed the army officer for
the arson attack and entered into a heated debate with
him. He expressed the fear that she might have been
kidnapped because of that debate. The army officer who
had burned down the Chakma houses and with whom
Kalpana Chakma exchanged heated words was none other
than Lt. Ferdous himself. This took place at Kalpana
Chakma's house few days before her abduction.

Amnesty International believes her abduction has
something to do with the parliamentary election in
which Kalpana Chakma had taken part as a campaigner
for an independent candidate. Amnesty wrote, ‘It has
been suggested that her abduction may have been linked
to her support of a candidate representing the
interests of indigenous people in the parliamentary
elections that took place in Bangladesh on June12.’

PROTESTS
Storms of protest swept the CHT. In Marishya, Kalpana
Chakma's home county, general strike was observed.
While the Jummas supported the programme whole
heartedly, some sections of the Bengali settlers
attacked a rally of the picketers and shot dead
16-year old Rupon Chakma. The settlers also hacked to
dead Sukesh Chakma, Monotosh Chakma and Samar Chakma,
who were on their way to Baghaichari bazaar to take
part in the picketing.

Protests were also held in other parts of the country
including capital Dhaka. On 27 June 1996, HWF staged a
symbolic hunger strike in front of the national press
club in Dhaka. Mass rallies were also organised by the
National Committee for the Protection of Fundamental
Rights in CHT. All the progressive political parties
and human and civil rights organisations of the
country joined the protest. The role of the print
media was impressive. Because of their unstinted
support, the incident could attract national and
international attention. Here we mention some
newspaper headlines published at the time on Kalpana
Chakma.

The daily star: 1 July: DU students urge govt. to
rescue Kalpana Chakma; 5 July
Abduction of Kalpana Chakma: Home Ministry probe
demanded; The Independent: 15 July, 1996: 12 human
rights bodies call to rescue Kalpana Chakma; Bhorer
Kagoj: 6 July: Hill Women’s Federation rally: It is a
mystery that there is no govt. effort to rescue
Kalpana; Janakantha: 21 July, 1996: Editorial: rescue
Kalpana; Bhorer Kagoj: 23 July, 1996: Demands for
discussion on Kalpana in Parliament; Sangbad: 19
august, 1996:
Kalpana’s mother tells: HR Commission lying, I want my
daughter back.

ATTEMPT TO COVER UP
From the very beginning, there was an attempt to cover
up the incident. Initially, the army termed the
incident as a 'love affair". However, they backtracked
later on and flatly denied army's involvement in the
abduction. When they failed to sweep the incident
under the rug, they launched a vicious disinformation
campaign. The Chittagong Hill Tracts Commission in its
report Life is Not Ours, update 3, said that an NGO
named Bangladesh Human Rights Commission on 15th
August 1996 at a press conference declared that
Kalpana Chakma had been seen in the Tripura state of
India and that she herself plotted the abduction
incident. Agartala based Humanity Protection Forum
investigated the accusation in the area and by
interviewing many peoples they had come to the
decision that the statement of Bangladesh Human Rights
Commission is totally baseless and false. Kalpana
Chakma’s mother also in a press conference rejected
the BHRC’s statement and termed it as a `blatant lie’.

In a 9-page lengthy press release the Army's 24th
infantry Division, which is responsible for
coordinating the so-called counter-insurgency
operations in CHT, displayed its mastery over cooking
up stories. It questioned the authenticity of the
claim that Kalpana Chakma was kidnapped and suggested
that she might be hiding somewhere on her own accord
to support the unholy efforts of the Shanti Bahini and
to embarrass the government. In the same press
statement, the army claimed that Kalpana Chakma had
been trying to participate in the International
Women's conference in Beijing and that she might have
secretly left the country using her international
passport. The 24th Infantry Division also dropped
leaflets from helicopters announcing a reward of Taka
50,000 for information about the whereabouts of
Kalpana Chakma.

However, the Jumma people's organisations such as Hill
Peoples Council, Hill Student's Council and Hill
Women's Federation rejected the statement of the 24th
Infantry Division and demanded that the government
steps up efforts to find out Kalpana Chakma. They
refuted the claims made in the statement with forceful
and logical arguments thus frustrating its nefarious
attempt to create confusion about the kidnapping.

CONTROVERSIAL ISSUE?
Yet to the great surprise of all, the most damaging
remark about the abduction of Kalpana Chakma was made
by former guerrilla leader and Jana Samhati Samiti
president Santu Larma. When, after the closing of the
surrendering ceremony at Khagrachari stadium on 10
February 1998, the media persons asked him to comment
on the abduction of Kalpana Chakma and Logang
massacre, he said "these are all controversial
issues". (Daily Janakantha, 11 February 1998). It is
still an enigma as to why Mr. Larma had to put his
reputation at stake by making such a comment. Whatever
may be the reasons, the later events have turned out
that it is Mr. Larma who has become the most
controversial figure in the contemporary political
history of the CHT.

PROBE COMMITTEE
After months of protests and mounting international
condemnation, the government on 7 September 1996
constituted a three-member inquiry committee headed by
Justice Abdul Jalil. The other members are Sawkat
Hossain, Deputy Commissioner of Chittagong and Dr.
Anupam Sen, professor of Chittagong University.

The committee is reported to have submitted its
findings to the Ministry of Home Affairs a couple of
years ago, but the government is yet to make it
public. After the incident Kalpana Chakma's brother
Kalindi Kumar Chakma filed an FIR with the Baghaichari
police station. (Case number 12/6/1996#2). There is
allegation that the officer-in-charge registered the
FIR after dropping the army from it. Even then, the
police never acted on this FIR.

DOES LAW TURN ITS OWN COURSE?
When the members of the ASK Team asked whether Kalpana
will be rescued, the then DC of Rangmati District
replied, "Law will take its own course" and "Police
are investigating” After eleven years, the law seems
to have lost its course. The inquiry report has never
seen the light of the day and the culprits roam
scot-free. Lt. Ferdous, the mastermind behind the
kidnapping, is reported to have been promoted to the
rank of Major and posted back to Karengatoli army
camp, not far from Kalpana Chakma's village New
Lalyaghona. This amounts to an indigestible affront to
the human rights organisations and to those who
supported the demand that Lt. Ferdous should be
brought to justice.

CONCLUSION: MAKE THE REPORT PUBLIC
The present caretaker government of Dr. Fakruddin
Ahmed has taken many commendable actions to clear the
mess that was created by the previous partisan
governments. With regard to the Chittagong Hill
Tracts, it has not yet taken any major steps, apart
from withdrawing a few base camps, taking decision to
call the meeting of the CHT Ministry's advisory
committee and to reactivate the Task Force on the
rehabilitation of the Jumma refugees. We hope the
government would take a bold step to make the inquiry
report on disappearance of Kalpana Chakma public.
Making the report public does not require any money or
hard work. What it needs is just a decision. That's
all.

Vive for Hollande!

Mithun Chakma Jumma ‎'They failed because they did not start with a dream'- this is a quaotation of Shakespeare! i am amused that this is not a quotation of Great pla writer William Shakespeare but of Nicolas Shakespeare, the chief of the Daily Telegraph. And in France the Presidential election will go on. Presidential Socialist frontrunner Mr. François Hollande had picked up that quotation, reckoning perhaps playwri...te William Shakespeare's quotation, reported the newspapers. May be a murmuring soliloquay of Mr. Hollande recognising the Hero, Mr. Gabriel, of nicolas shakespeare's novel The vision of Elena Silva, from which Mr. Hollande noted down the quotation. Gabriel, in the novel, is a Maoist, who is going to fight again perhaps for 'a dream' after touching finishing line of failure, by his comrade-in-arms, with a new start. Vive for Hollande!

13th Years on after Kalpana Chakma

 Kalpana Chakma

Kalpana Chakma was a Woman leader of the Hill Women's Federation(HWF) a Chittagong Hill Tracts(CHT, based organisation in CHT.
She was vocal against army atrocities and also a good organiser.
She was abducted by BD army Lieutenant Mr. Ferdouse in 1996 on 12th June at midnight with the help of his souldier.
When the news apreadwide in the CHT the CHT ethnic people got angered and protested spontenously.
On 27th June when the people protesting the abduction the Bengali settlers killed 4 young people. there name is Rupan, Sukesh, Samar, Manatosh.
After heavy protest the incident got national and international support.
So the BD Govt. had to set up Judicial probe body to investgate the incident.
But after 13th years till now the BD Govt. did not even publish the the report.
And it is predicted that the said abductor still serving as an officer in the army.
We hope it will again get the national and international support so that the perpetrators get punishment.

Tajuddin Ahmed





Tajuddin Ahmed was really a great leader. But this is very much deplorable that he did not have his rewards. July 23, his 82nd birth anniversary, passed silently. I read only one write-up on him written by Mr. Shahnoor Wahid under the title 'Tajuddin Ahmed: The lonely warrior" which appeared on 24 July, 2007.
I have read the article with passion and emotion. If we deeply study the 1971 liberation war, we would see how he (Tajuddin Ahmed) led the nation towards victory.
Let's honour and recognise him. Thanks to Mr. Shahnoor Wahid for his write-up.

Homage to Quazi Nooruzzaman

Homage to Quazi Nooruzzaman

http://newagebd.com/newspaper1/archive_details.php?date=2011-05-08&nid=17972Admin

QUAZI Nooruzzaman was a real patriot. He was also a true friend of the people of the Chittagong Hill Tracts. He always tried to protect the interest of the CHT people. In 1999, he came to Khagrachari to attend a meeting organised by Hill Students Council. There he vehemently took stand for the Jumma people. In a meeting in Dhaka before the CHT accord was signed, he expressed his doubts of the outcome of the process. We pay our respect and also salute him from the depth of our heart. We lost a true friend.
Mithun Chakma

সংগঠনের কাজের ধরণ বর্তমানে কেমন হতে পারে

"... কাজের ধরণের মধ্যে থাকবে- চীনের জনগণের নম্রতা এবং বাস্তববাদিতা; চীনের কৃষক সমাজের সরলতা এবং কঠোর পরিশ্রমী মানসিকতা; ধীমানগণের মত অধ্যয়নের প্রতি ভালবাসা এবং চিন্তার গভীরতা; বিপ্লবীদের মত নমনীয়তা এবং ঠান্ডামেজাজ; বলশেভিকদের মত ধৈর্য ও একাগ্রতা।

দৈনন্দিন কাজে ঢিলেমি(সুবিধাবাদিতা) পরিহারের জন্য সংগ্রাম করতে হবে। বর্তমানে আামাদেরকে  মনসংযোগবিহিীন নিয়মবদ্ধ যান্ত্রিক কাজের ধারা; বাক-বাগীশতা; ঔদ্ধত্য, আনুষ্ঠানিকতা, রুটিনবাদিতাসহ সকল ধরণের কাজের ধারা যা পার্টি এবং মিলিটারির চমৎকার ঐতিহ্যকে ধ্বংশ করে এ বিষয়ে সংগ্রাম করবে হবে।"- চৌন এন লাই এর ' How To Be A Good Leader' এর প্রবন্ধ হতে নেয়া।
নিপীড়িত জাতির অধিকার আদায়ের একমাত্র হাতিয়ার হচ্ছে সংগঠন বা পার্টি। সুসংগঠিত এবং শক্তিশালী পার্টি-ই সংগ্রামকে সফলতার পথে নিয়ে যেতে পারে।  পার্টির তাত্ত্বিক ভিত্তিভূমির জনমুখীনতা, রণকৌশলের বাস্তবমুখীনতা এবং সঠিক সাংগঠনিক কর্মপদ্ধতিই হচ্ছে লড়াইয়ে সফলতার মৌল চাবিকাঠি।  এখানে জোচ্চুরি- ফাঁকবাজির কোনো স্থান নেই। পার্বত্য চট্টগ্রামের লড়াই সংগ্রামের ক্ষেত্রেও আামাদের সবাইকে এই পথই অনুসরণ করতে হবে। রণনীতিগত-রণকৌশলগত এবং সাংগঠনিক কর্মপদ্ধতিগত দিক থেকে যে পার্টি যুগোপযোগি অবস্থান গ্রহণ করতে পারবে সে পার্টির নেতৃত্বেই লড়াই সংগঠিত হবে। এদিক থেকে  ব্যক্তির ভূমিকা নৈর্বক্তিক, সামষ্টিক কর্মকান্ড এবং তার ভূমিকাই মুখ্য।

চীন কেন মহান চীন? কেন চীন উন্নতির অগ্রযাত্রায় সাবলীল?

চীন মহান চীন

" ... ... মাও সেতুঙ বা চীনের কম্যুনিস্ট পার্টি সবসময় নীতি শিক্ষার উপর খুব বেশী জোর দেন।কি করতে হবে এবং কি করবে না এ সম্পর্কে শিশুকাল থেকেই সকলকে সচেতন করে দেয়াহয়। এই নৈতিকতার একটি উঁচু মানদন্ড আছে বলেই এরা দেশকে নানাভাবে এগিয়ে নিয়ে যেতে পেরেছে।"


চীনে সর্বত্র বাস্তব কিছু করার জন্য কিছু বিষয়ে জোর দিয়ে শ্লোগান দেয়া হয় এবং তা কার্যকর করা হয় বাস্তবেই-

পাঁচটি জিনিসের উপর জোর দাও বলতে এরা বোঝায় - শোভনতা, সৌজন্য, নৈতিকতা, স্বাস্থ্য ও শৃঙ্খলাপরায়নতা।

চারটি সৌন্দর্য বলতে এরা বোঝায়- ভাষা, পরিবেশ, আচরণ ও মন।

তিনটি ভালবাসা হল- জনগণকে, সমাজতন্ত্রকে(আপনি একে আদর্শও বলতে পারেন), এবং মাতৃভূমিকে ভালবাসা।"

মাও সেতুঙের তিনটি মূল কথা-

১. তথ্য সংগ্রহ ও বাস্তব অনুসন্ধানের মাধ্যমে সত্য সংগ্রহ করা।শুধুমাত্র অধ্যয়ন নয়, বাস্তব জ্ঞান অর্জন করা এবং বাস্তবেই তা কার্যকর করা এবং বাস্তবেই অধ্যয়ন জ্ঞানকে কাজে লাগিয়ে তার সঠিকতা বিচার করা।

২. জনগনই ইতিহাসের চালিকাশক্তি। জনগণের উপরই নির্ভর করতে হবে সকলকিছুতে এবং আমাদের একাত্ম হতে হবে জনগণেরই সাথে এবং জনগণেরই প্রকৃত মঙ্গলের জন্য।

৩. স্বনির্ভরতা ব্যক্তিক ক্ষেত্রে, সমাজের ক্ষেত্রে এবং রাষ্ট্রীয় ক্ষেত্রেও। নিজের শক্তির উপর নির্ভর করেই এগুতে হবে, নীতি কৌশল ঠিক করতে হবে, এগিয়ে যেতে হবে।

চীন ঠিক করতে পেরেছে তাদের লক্ষ্য এবং বৈশিষ্ট্যকে। তারা সুস্থির করতে পেরেছে তাদের দর্শনকে। তারা যা বলে তাইই করে থাকে। যা তারা আইনে পরিণত করে তাই ই তারা মানার চেষ্টা করে। সর্বোপরি তারা তাদের সকল কাজকে পরিণত করতে পেরেছে আন্দোলনে! তারা শুধু উদ্যোগ নেয় না। তারা শুধু কল্পনা করে না। তারা শুধু পরিকল্পনা করেই ক্ষান্ত হয় না। তারা বাস্তবে তার কার্যকারিতা পরীক্ষা করে। তারা বাস্তবেই তা প্রয়োগ করে। কোনো দেশ বা জাতি বা সংঘবদ্ধ শক্তিকে অগ্রযাত্রায় শামিল হতে হলে তাকে অব্শ্যই একটি লক্ষ্য নির্ধারণ করতে হবে। সেই লক্ষ্য অর্জনে বাস্তব কাজ তাকে করতে হবে। বাস্তব কাজের মাধ্যমেই তার লক্ষ্য অভিমূখী যাত্রার সফলতা ব্যর্থতা বিচার করে তাকে নতুন কৌশল ঠিক করে এগিয়ে নিতে হবে তার অগ্রযাত্রাকে।
এ ছাড়া সম্ভব নয় এগিয়ে যাওয়া। উদ্যোগ ব্যক্তিগত, কিন্তু আন্দোলন হচ্ছে শত হাজারের। শত হাজার লক্ষ কোটিকে সেখানে সম্পৃক্ত হতে হয়।
সেই আন্দোলন গড়ে না তুলতে পারা পর্যন্ত তার কোনো ফল বা উপযোগিতা বাস্তবে নেই।

(লেখাগুলো্ বলা যায় চীন সংক্রান্ত একটি বই থেকে সংগৃহীত তবে বাক্য বিন্যাস পরিবর্তন করে পুনঃলি
খিত)

জাতিসত্তার অধিকার আদায়ের লড়াইয়ে সাংস্কৃতিক সংগ্রামও এক অপরিহার্য গুরুত্বপূর্ন সংগ্রাম


জাতিসত্তার অধিকার আদায়ের লড়াইয়ে সাংস্কৃতিক চেতনার সংগ্রামও এক অপরিহার্য গুরুত্বপূর্ন সংগ্রাম।আমরা পার্বত্য চট্টগ্রামের জনগণ বহু বছর ধরে লড়াই সংগ্রাম করছি। এই লড়াই এক নিরন্তর প্রক্রিয়া হিসেবে এগিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু এই লড়াই কি শুধু রাজনৈতিক অধিকারের লড়াই? এই লড়াইয়ে সাংস্কৃতিক চেতনার লড়াইয়ের ভূমিকা বা অবস্থান কোন পর্যায়ে? এই বিষয়টি নিয়ে সংক্ষেপে নীচে কিছু আলোকপাত করার চেষ্টা করা হলো।
এ বিষয়ে লেখার আগে প্রথমে হয়তো কয়েক লাইনে ‘সংস্কৃতি’ এই শব্দটির সাধারণ সংজ্ঞা নিয়ে একটু কথা বলা প্রয়োজন মনে করছি। অক্সফোর্ড ডিকশনারী অনলাইন সংস্করণের এই শব্দটির সংজ্ঞা দিতে বলা হয়েছে, ‘the ideas, customs, and social behaviour of a particular people or society”। ইংরেজী culture শব্দটি এসেছে ল্যাটিন এবং ফ্রেঞ্চ ভাষা থেকে। মধ্যযুগের ইংরেজীতে এই শব্দটিকে ‘চাষাবাদ’ অর্থে বোঝানো হতো। পরে তা রূপ নেয় ”cultivation (of the mind, faculties, or manners)”-এ। বর্তমানে এই শব্দটিেযর অর্থ হচ্ছে আমরা আমাদের জীবনাচরণে যা করে থাকি যে সাধারণ বৈশিষ্ট্যসমূহ আমাদের রয়েছে তাইই বোঝায়।বাংলায় সংস্কৃতি অর্থে ইংরেজী culture শব্দটিকে বোঝানোর চেষ্টা করা হয়ে থাকে। তবে যখন ‘সাংস্কৃতিক’ শব্দটি ব্যবহার করা হয় তখন সংকীর্ন অর্থে এই শব্দটিকে ‘নাচ-গান-নাটক-ছবি তৈরী করা’ ইত্যাদি অর্থেও বহুলভা্বে ব্যবহৃত হতে দেখা যায়। সাধারণত লোকজনের কাছে ‘সাংস্কৃতিক’ শব্দটি এই বহুলভাবে ব্যবহৃত অর্থেই বোঝানো হয়ে থাকে। তবে আমরা ‘সংস্কৃতি’ এবং ‘সাংস্কৃতিক’ এই শব্দকে “‘the ideas, customs, and social behaviour of a particular people or society”-এই অর্থেই বোঝানোর চেষ্টা করবো।
কোরিয়ানরা অনেকদিন জাপানীদের শাসনাধীনে ছিল। এই অধীনতার নাগপাশ থেকে বেরিয়ে আসতে তারা রাজনৈতিক সংগ্রামের পাশাপাশি সাংস্কৃতিক সংগ্রাম করেছিল। এই সাংস্কৃতিক সংগ্রাম মানে নাচ-গান নয়, বরং চিন্তা-চেতনা-আদর্শের সংগ্রামই প্রাধান্যে ছিল।১৯২২ সালের দিকে তাদের একজন শিশুদের নিয়ে কাজ করেন। আগে সমাজে শিশুদের একঅর্থে শুধু ছোটো/অবুঝ এভাবে দেখা হতো।তাদেরকে অবজ্ঞাও করা হতো। তিনি প্রথমে শিশুদের মানসিক-বৌদ্ধিক বিকাশের জন্য শিশুদের প্রতি সমাজের পূর্ব মানসিকতা বদলানোর আহ্বান জানান।শিশুদের উপরই যে জাতির ভবিষ্যত নির্ভর করছে এ বিষয়ে সচেতন করার চেষ্টা করেন। তিনি সারা কোরিয়ায় ঘুরে শিশুদের বিষয়ে জনগণের মাঝে সচেতনতা আনার চেষ্টা করেন।বছরের একটি দিন শিশু দিবস হিসেবে পালনের উদ্যোগ নেন। শিশুতোষ প্রকাশনাও তিনি প্রকাশ করেন।তার এই কার্যক্রম সারা কোরিয়ায় এক আন্দোলনে রূপ নেয়। তবে জাপান শাসকগোষ্ঠি তার এই কাজকে ভালোচোখে দেখেনি। কোরিয়া স্বাধীন না হওয়া পর্যন্ত কোরিয়ার জনগণ স্বাধীনভাবে এই দিবসটি পালন করতে পারেনি।স্বাধীন হবার পর তারা আবার এই দিবসটি পালন করতে শুরু করে।কোরিয়ার বর্তমান অর্থনৈতিক-সাংস্কৃতিক উন্নতির পেছনে এই আন্দোলনের বুনিয়াদী ভূমিকা রয়েছে।
যে সকল জাতি-সমাজ আজ পর্যন্ত স্বাধিকার-অধিকার পেয়েছে তার পেছনে এই ধরনের সামাজিক-সাংস্কৃতিক আন্দোলন বিরাজমান ছিল।
ভারতবর্ষে যারা প্রথমদিকের বিপ্লবী ছিলেন তারা এই সাংস্কৃতিক সংগ্রাম শুরু করেছিলেন প্রথমে ‘শরীরচর্চা-কুস্তি-ব্যায়াম’ ইত্যাদি দিয়ে।ভারতবর্ষীয় বিপ্লবীরা এটা দিয়ে শুরু করেছিলেন কারন, তারা প্রথমেজনগণের মধ্যে এই সাহস আনতে চেয়েছিলেন যে, ভারতের জনগণও এই বেনিয়া-ফারাঙিদের বা ইংরেজেদের মতো সবকিছুতে সমকক্ষ হতে পারে।এমন কি শক্তি-সাহসেও।অনুশীলন সমিতির ইতিহাস নিয়ে জীবনতারা হালদারের বইয়ে লেখা রয়েছে,”১৯০০ সালের বহু পূর্বের কথা।সেই কালে “ভীরু কাপুরুষ” বাঙালীকে সকলে ঘৃণা করিত।এই কলঙ্ক মোচনের জন্য কলিকাতার কয়েকজন বিশিষ্ট ব্যক্তি বিভিন্ন স্থানে ‘আখড়া’ স্থাপন করিয়াছিলেন।তাহাতে প্রধানতঃ ডন, বৈঠক, মুগুর, কুস্তি প্রভৃতি ব্যায়াম শিক্ষা দেয়া হইত।”
১৯০২ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় অনুশীলন সমিতি। আদর্শ যুব সমাজ গঠনই ছিলো এই সমিতির লক্ষ্য।এই লক্ষে তারা এলাকায় এলাকায় ক্লাব গঠন করেছিলেন, ব্যায়ামাগার স্থাপন করা হয়েছিল।
শরীরচর্চার পাশাপাশি মানসিক উন্নতির জন্য দেশ-বিদেশের বীরপুরুষদের জীবনচরিত,বিভিন্ন দেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের কাহিনী সহ উৎকৃষ্ট বই পড়তে উৎসাহ দেয়া হত।নৈতিক উন্নতির জন্য সপ্তাহের একটি দিন একসাথেবসে Moral Class এর আয়োজন করা হত।জীবনতারা হালদার লিখছেন,”… প্রত্যহ নিয়মিত ব্যায়াম করিতে হইত, Moral Class প্রভৃতি অনুষ্ঠানে যোগ দিতে হইত,
সকল বিষয়ে স্বাবলম্বী হইতে হইত- খেলার মাঠ ঝাড়ু দেওয়া, পাঠাগারের বই রৌদ্রে দেওয়া ও ঝাড়া,আলমারী সাফ করা, অফিসঘর কলি দেওয়া, এমনকি ড্রেন সাফ করা, জঞ্জাল ফেলা, নৌকায় দাঁড় টানা,হালধরা, দীর্ঘপথ ভ্রমণ, সাইকেল চালানো ইত্যাদি।”
পৃথিবীর দেশে দেশে বা নানা জাতির মধ্যে এই সাংস্কৃতিকচেতনার সংগ্রামের ধারা বা স্তর এক নয় ; কিন্তু তাদেরকে প্রথমেসাংস্কৃতিক-বৌদ্ধিক-আদর্শিক সংগ্রামই শুরু করতে হুয়েছিল। ফরাসী বিপ্লবের পূর্বেও তো এক বিরাট বৌদ্ধিক লড়াই সংঘটিত হয়েছিল!
চীনবিপ্লবের আগে চীনে এসেছিল এক বিরাট জাতিগত চেতনার জাগরণ। চীনকে এগিয়েনিতে এই সময় চীনের যারা সচেতন ছিলেন তারা শত শত ব্যক্তিকে দেশের বাইরে উন্নত সংস্কৃতির সমাজ ইউরোপে পাঠিয়েছিল যাতে তারা ভালো সৃস্কৃতিকে আয়ত্তকরতে পারে এবং পরে চীনে এসে তারা যাতে চীনের উন্নতিতে ভুমিকা রাখতেপারে।এই উদ্যোগ তারা সচেতনভাবেই নিয়েছিলেন। চীনা একটি প্রবাদে বলা হয়েছে-একটি দেশ সম্পর্কে হাজারবার শোনার চেয়ে একবার নিজ চোখে সেই দেশ দেখে আসা অনেক ভালো।একজন চীনা বুদ্ধিজীবী বলেছেন , জাতিগঠনের জন্য তিনটি উপাদানের প্রয়োজনঃ(ক) দ্তিহিক বল বৃদ্ধি। (খ) জ্ঞানের উন্মেষ। (গ) নৈতিক চরিত্রশক্তি।
চীনের মাহন সর্বহারা সাংস্কৃতিক বিপ্লব। বিরাট এক দক্ষযজ্ঞ। মহান এক কর্মযজ্ঞ। যার অভিঘাতে গোটা চীন থরথর করে কেঁপে উঠেছিল। যার প্রভাব সারা বিশ্বকে নাড়া দিয়েছিল। যার লক্ষ্য ছিল মহান সমাজতান্ত্রিক এবং সাম্যবাদ অভিমুখী এক চীন। যা সফল হতে পারেনি, তবে যা আজকের এই পুঁজির অধীন চীনকে উচ্চ শিখর অভিযানের এক অন্যতম অভিযাত্রীরূপে দৃশ্যমান হতে দেখা যাচ্ছে।তা সম্ভব হচ্ছে তারই কল্যাণে। আজকে পুঁজিবাদী পথবাহী চীনের নেতৃত্ব এই মাহন সাংস্কৃতিক বিপ্লবের কর্মযজ্ঞকে ঝেরেবংশে নিকুচি করার চেষ্টা করে। কিন্তু এমন একটি মহান কর্মকান্ডের অভিজ্ঞতা তারা পেয়েছে এলই তারা জানতে পেরেছেন জাগরণের শক্তি কত ভয়াবহ এবং কত মহীয়ান! চীনের সাংস্কৃতিক বিপ্লবের নানা দুর্বলতা সাদা চোখে দৃশ্যমান। তবে তার প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষ প্রভাবই কিন্তু আজকের এই চীন তা কিন্তু মনে রাখা প্রয়োজন। এই দক্ষযজ্ঞ যদি না চলতো তবে চীন তার শক্তিকে চীনতে পারতোনা, শক্তিকে কাজে লাগানো যোগ্য হতোনা।বাস্তবে যখন তাদের নেতৃত্ব জনগণের সাথে থেকেছে, মহান সাংস্কৃতিক বিপ্লবের কারনে তাদের ‘শাস্তিস্বরূপ’ শারীরিক শ্রমের কাজে, শ্রমিকে হিসেবে, কঠোর পরিশ্রমের কাজে, গ্রামে থাকতে হয়েছে তখনই তারা বুঝেছিলেন চীন কোথায় ছিলো এবং যারা প্রতিভাময় নেতৃত্ব তারা সিদ্ধান্ত নিতে পেরেছিলেন সামনের চীনকে জাগাতে হলে কী ভুমিকা নিতে হবে।তারা চীনকে জাগিয়েছে পুঁজির অধীন এক ভারবাহী হিসেবে পার্থক্য শুধু এটাই।
অন্যান্য জাতি বা দেশের সমৃদ্ধি বা উন্নতির পেছনে যেমনসাংস্কৃতিক-আদর্শিক লড়াই মুখ্য ভুমিকা পালন করেছে তেমনি আমাদেরকেও যদিলড়াইয়ে বিজয় অর্জন করতে হয় তবে আমাদেরকেও সেই সাংস্কৃতিক সংগ্রাম করতেহবে।শেষে এটাই বলা যায়, সাংস্কৃতিক-সামাজিক বুনিয়াদী লড়াই ব্যতীতস্বাধীকার বা রাজনৈতিক অধিকারের লড়াই যেন build a castle in the air!
তবে সঠিক রাজনৈতিক আন্দোলনের দিকনির্দেশনা অথবা রাজনৈতিক চেতনা সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক আন্দেলনই সমাজে নতুন কিছু জোয়ার আনতে সক্ষম হয়্।